জাকার্তাও মেতেছে মাতৃবন্দনায়

দীপ গঙ্গোপাধ্যায়
২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১৫:৫০:০১ | শেষ আপডেট: ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ০৯:১৯:১১
প্রতি বছর এ রাজ্যের সঙ্গেই দুর্গাপুজোর আনন্দে মেতে ওঠে জাকার্তা। এ পুজো নতুন নয়।
জাকার্তার পুজো।

১৯৮৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল জাকার্তা বেঙ্গলি অ্যাসোসিয়েশন। শুধু জাকার্তা নয়, ইন্দোনেশিয়ার জাভার বান্দুং, বেকাসি, বোগোর থেকেও বাঙালিরা যোগ দিয়েছেন এখানে।

প্রতি বছর জাকার্তায় দেবীপক্ষে সাজ সাজ রব প়ড়ে যায়। দুর্গাপুজোর চার দিন জাকার্তা মেতে ওঠে মায়ের বন্দনায়। অঞ্জলি, ভোগ, সন্ধিপুজো, ধুনুচি নাচ বাদ যায় না কিছুই। হয় প্রতিমা নিরঞ্জনও। এবং অধিকাংশ প্রবাসের পুজোর মতো উইকএন্ডে নয়, দুর্গাপুজোর তিথি মেনে নির্দিষ্ট চার দিনেই এখানে হয় মায়ের বন্দনা।

এ বছরও ২৫ সেপ্টেম্বর পঞ্চমী থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর দশমী পর্যন্ত জাকার্তায় চলছে মাতৃবন্দনা। 

সর্বশেষ সংবাদ

দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
হেডফোন বা হেডসেট এমন বাছুন যা কি না আপনার কান আর শরীরকে কষ্ট না দেয়।
ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
এই একবিংশ শতাব্দীতে ১৫৯০-এর একটুকরো আওধকে কলকাতায় হাজির করেছেন ভোজনবিলাসী শিলাদিত্য চৌধুরী।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
শারদীয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই আগমনীর বার্তা নিয়ে হাজির দীপান্বিতা।