শারদোৎসবে মেতে উঠতে প্রস্তুত ঢাকা

নিজস্ব প্রতিবেদন
২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ০০:৫৩:১৪ | শেষ আপডেট: ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ০৯:১৯:১১
শাঁখারি বাজারে সঙ্ঘমিত্রের প্রতিমা

বৈচিত্র আর চমকের প্রতিযোগিতা এ বার ঢাকার পুজোয়। রাজধানীর ৪৯টি ওয়ার্ডে এ বছর মোট ২৩১টি পুজোর আয়োজন চলছে। সেজেগুজে প্রায় তৈরি দেবী দুর্গা। প্রস্তুতির শেষে রয়েছে মণ্ডপগুলো।

১১ বছর ধরে কলাবাগান মাঠে দুর্গাপূজার আয়োজন করছে ধানমন্ডি সার্বজনীন পূজা কমিটি। বরাবরের মতোই এ বারও তাদের বাজেট প্রায় কোটি টাকার কাছাকাছি। পুণের স্বর্ণমন্দিরকে থিম করে সাজানো হয়েছে এ বারের মণ্ডপ। পুজোর পাঁচদিনই বিতরণ করা হবে প্রসাদ।
ঢাকার অভিজাত এলাকা বনানী মাঠে পুজো করছেন গুলশান-বনানী পূজা ফাউন্ডেশন। এ বছর এই পুজো ১০-এ পা দিল। দক্ষিণেশ্বরের মন্দিরের আদলে তৈরি করা হয়েছে এখানকার মণ্ডপ। দেড় মাস ধরে ৩০০ শ্রমিক কাজ করছেন। মণ্ডপের প্রায় ৯৫ ভাগ কাজ শেষ। মাঠের মাঝে তৈরি মণ্ডপের পাশেই বিশেষ মঞ্চ। যে মঞ্চে পুজোর থিমে চলবে বিশিষ্ট শিল্পীদের গান পরিবেশনা। থাকবে প্রসাদ।

Durga Puja Preparation in Dhaka-Ananda Utsav 2017

ফার্মগেট এলাকার খামার বাড়িতে কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটের পুজো মণ্ডপ।

ফার্মগেট এলাকার খামার বাড়িতে কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটে পুজোর বয়স ২৬ বছর। গোল্ডেন মোটিফে দেবী দুর্গা এখানে স্থান পেয়েছেন বেলুড় মঠের থিমের মণ্ডপে। নতুন ঢাকার পূজায় থিমের ছড়াছড়ি থাকলেও পুরনো ঢাকার পূজায় রয়েছে ঐতিহ্য আর বনেদিয়ানা।

ঢাকার পুরনো মন্দির রায়েরবাজার মহাপ্রভু আখড়া মন্দিরের দুর্গা পুজোর বয়সও পেরিয়েছে শত বছর। ঐতিহ্য আর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মিশেলে এই মন্দিরে পুজো পান দেবী।
বায়ান্ন বাজার তেপান্ন গলির আরেক গলি শাঁখারি বাজার। সনাতন ধর্মাবলম্বী অধ্যুষিত এই বাজারে পুজোর সব সরঞ্জামই মেলে। বর্ষীয়ান প্রতিমা কারিগর হরিপদ পাল এই গলিতেই প্রতিমা গড়েন। আর লম্বা রাস্তার কয়েক গজ পরপরই রয়েছে পুজোমণ্ডপ।
এখনাকার বনেদি পূজা মণ্ডপ ‘প্রতিদ্বন্দ্বী’র মতো না হলেও সঙ্ঘমিত্রের পূজার রয়েছে আলাদা বৈশিষ্ট্য। এখানকার প্রতিমা গড়েছেন মানিকগঞ্জের শিল্পী সুকুমার পাল। শাঁখারি বাজারে পূজা হচ্ছে ৮টি। এর পাশেই তাঁতীবাজারেও পূজা হচ্ছে ন’টির মতো।

Durga Puja Preparation in Dhaka-Ananda Utsav 2017

কলাবাগান মাঠে ধানমন্ডি সার্বজনীন পুজো।
ঐতিহ্যের পুজো ছড়িয়েছে শ্যামবাজার, সূত্রাপুর। শ্যামবাজারের গোকুল চন্দ্র এস্টেটের পুজোর বয়স শত বছরের বেশি। স্বর্গীয় গোকুল চন্দ্রের উত্তরাধিকার নকুল চন্দ্র এলাকার সবাইকে পুজো টিকিয়ে রেখেছেন।
সূত্রাপুর থানার বিহরীলাল জিউ মন্দিরে পুজো হচ্ছে প্রায় পঁচাত্তর বছর ধরে। পাশেই মালাকারটোলা সার্বজনীন পুজো কমিটি এ বছর পা রেখেছে ৮৪ বছরে।
থিম আর ঐতিহ্যের মিশেলে ঢাকা জুড়েই প্রস্তুতি প্রায় শেষের দিকে। মহানগর পুজো উদযাপন কমিটি সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার রায় জানিয়েছেন, শারদ উৎসবকে বরণ করতে তাঁরা প্রস্তুত। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করে তাঁরা সর্বোচ্চ নিরাপত্তার আশ্বাস পেয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ আর সন্ধ্যায় অধিবাসের মধ্য দিয়ে শুরু হবে পাঁচদিনের শারদোৎসব।

সর্বশেষ সংবাদ

দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
হেডফোন বা হেডসেট এমন বাছুন যা কি না আপনার কান আর শরীরকে কষ্ট না দেয়।
ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
এই একবিংশ শতাব্দীতে ১৫৯০-এর একটুকরো আওধকে কলকাতায় হাজির করেছেন ভোজনবিলাসী শিলাদিত্য চৌধুরী।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
শারদীয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই আগমনীর বার্তা নিয়ে হাজির দীপান্বিতা।