বিয়ের আগে আমার আর গৌরবের এটাই শেষ পুজো

ঋদ্ধিমা ঘোষ
১৯ অগস্ট, ২০১৭, ১৭:১৬:২৪ | শেষ আপডেট: ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১৪:৪০:৫৪
পুজো বলে আলাদা করে নতুন ড্রেস কিনছি, এখন আর এমনটা হয় না। আসলে সারা বছরই শপিং চলতে থাকে।
Ridhima Ghosh
ওয়েস্টার্ন আউটফিটে আমি বেশি কমফর্টেবল। ছবি: অনির্বাণ সাহা। লোকেশন সৌজন্যে: হোয়াটস্‌ আপ কাফে, সাদার্ন অ্যাভিনিউ।

এখনও পুজোর কোনও প্ল্যান করিনি, বিশ্বাস করুন। আমার কোনও দিনই তেমন প্ল্যান করে কিছু হয় না। এ বারও কিছু ঠিক করিনি এখনও।

তবে জেনারেলি যেটা হয়, সেটা তুমুল আড্ডা। ভিড়ের মধ্যে ঘুরে ঘুরে ঠাকুর দেখতে ভাল লাগে না। তার থেকে অনেক ভাল লাগে আড্ডা। আসলে এ সময়টা তেমন শুটিং থাকে না। ছোটখাটো কিছু কাজ থাকলে সেটাও তাড়াতাড়ি শেষ করে ফেলি। তারপর দিনভর আড্ডা। যে কোনও বন্ধুর বাড়ি চলে যাই আমরা। সেখানেই খাওয়া-দাওয়া, গল্প…ফুল মস্তি।

পুজো বলে আলাদা করে নতুন ড্রেস কিনছি, এখন আর এমনটা হয় না। আসলে সারা বছরই শপিং চলতে থাকে। পুজো বলে অনেক সময় আলাদা করে নতুন জামা তুলে রাখতেও পারি না। আর এ বার তো পুজোর পরই বিয়ে। বিয়ের শপিং চলছে। মোস্টলি শাড়ি কিনছি। যদিও ওয়েস্টার্ন আউটফিটে আমি বেশি কমফর্টেবল। তবে বিয়েতে তো শাড়ি পরতেই হবে। ফলে আর আলাদা করে পুজোর শপিংয়ের কোনও মানে হয় না।

বিয়ের আগে আমার আর গৌরবের এটাই লাস্ট পুজো। তবে আলাদা করে কোনও প্ল্যান নেই। বরং আমাদের বন্ধুদের যে কমন গ্রুপটা আছে, তাদের সঙ্গেই পুজোতে হ্যাংআউট করব।

 

সর্বশেষ সংবাদ

দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
হেডফোন বা হেডসেট এমন বাছুন যা কি না আপনার কান আর শরীরকে কষ্ট না দেয়।
ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
এই একবিংশ শতাব্দীতে ১৫৯০-এর একটুকরো আওধকে কলকাতায় হাজির করেছেন ভোজনবিলাসী শিলাদিত্য চৌধুরী।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
শারদীয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই আগমনীর বার্তা নিয়ে হাজির দীপান্বিতা।