পুজোয় কোন বিশেষ কারণে নীলাঞ্জনার উপর ভরসা করেন যিশু?

নিজস্ব প্রতিবেদন
১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ০৬:৩৫:৪০ | শেষ আপডেট: ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১২:১২:২৬
অষ্টমীর সকালের ধুতি-পাঞ্জাবি। ওটা পরতেই হবে। আর বাকি যেটাতে কমফর্টেবল।
jisshu sengupta
ফ্রেমবন্দি দম্পতি। ছবি: নীলাঞ্জনা সেনগুপ্তর টুইটার পেজের সৌজন্যে।

দুর্গাপুজো মানেই যেন বেশ কিছু ক্ষেত্রে নিয়ম ভাঙার গন্ধ। কখনও ডায়েট, কখনও বা ডেলি রুটিন— ভেঙেচুরে যায় সব কিছুই। সেলেবরাও ব্যতিক্রম নন। বছরভর শুটিংয়ের অবসরে ছুটি কাটান তাঁরা। অভিনেতা যিশু সেনগুপ্তের পুজো মানে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানো। নিজেই স্বীকার করলেন সে কথা।

আর ডায়েট? যিশুর কথায়: ‘‘আমি এমনিতেই ডায়েটে খুব একটা বিশ্বাস করি না। আর পুজোর সময় তো কোনও বাছবিচার নেই। বিরিয়ানি ইজ মাস্ট। যে কোনও ধরনের স্টিক থাকবে। এ ছাড়া ফুচকা আর ভেলপুরি তো রয়েইছে। এগুলো তো এনিটাইম, এনিহোয়্যার।’’

পুজোর জন্য কি আলাদা কোনও ফ্যাশন স্টেটমেন্ট রয়েছে? যিশুর উত্তর, ‘‘অষ্টমীর সকালের ধুতি-পাঞ্জাবি। ওটা পরতেই হবে। আর বাকি যেটাতে কমফর্টেবল।’’ যদিও যিশু জানিয়েছেন, পুজোতে তিনি কী কী পরবেন তার দায়িত্ব থাকে স্ত্রী নীলাঞ্জনারই। নিজে পছন্দ করে পোশাক কিনলেও নীলাঞ্জনার পছন্দের উপরেই চোখ বন্ধ করে ভরসা করেন তিনি।

 

সর্বশেষ সংবাদ

আম বাঙালি স্নিকারকে যদি আপন করে নিতে পারতেন, তা হলে পায়ের বা কোমরের সমস্যা বোধহয় অনেকটাই কমে যেত।
পুজোয় নতুন জামার সঙ্গে নতুন জুতো কিন্তু মাস্ট। আর জুতো তো হাল ফ্যাশনের হতেই হবে।
প্রতিমার সিংহ ঘোটক আকৃতির, তিন চালি বিশিষ্ট চালচিত্রকে বলা হয় মঠচৌড়ি
কল্লোলের দুর্গোৎসব ৫৩ বছরে পা দিল
জার্মানিতে এটাই নাকি সবচেয়ে বড় পুজো
বাংলার গন্ধ মাখা স্বাদ
প্রবাসী মন আলো করে আছে আশ্বিনের রোদ্দুর। আকাশের দিকে তাকিয়ে সুর ভাঁজছে, বাজল তোমার আলোর বেণু।
কাফে কলম্বিয়া-র নানান স্পেশাল মেনু সম্পর্কে জানালেন জেনারেল ম্যানেজার অরিন্দম বন্দ্যোপাধ্যায়।