ডিজাইনার অভিষেক নাইয়ার চোখে এ বারের পুজো ফ্যাশন

অমৃত হালদার
১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১৪:৪৩:৩৪ | শেষ আপডেট: ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১১:০৭:৩৭
পুজোর চারটে দিন কোন পোশাক পরবেন, কোন পোশাকে আপনাকে লাগবে সবার চাইতে আলাদা? ফ্যাশন ট্রেন্ডই বা কী বলছে, এ সবের হদিস দিচ্ছেন ডিজাইনার অভিষেক নাইয়া।
পোশাকের গতানুগতিক ধারার ঠাসবুনোট ভেঙে একটু অন্য কিছু ট্রাই করুন না।

হাতে মাত্র আর কয়েকটা দিন। পটুয়াপাড়ায় দেবী প্রতিমার গায়ে পড়ছে রংয়ের আস্তরণ।ইতিমধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে লাল পদ্মরা এসে ঠাঁই নিয়েছে মল্লিকঘাটের হিমঘরে। যেন দেবী দশভুজার চরণে নিবেদনের অপেক্ষায়। সবই চলছে সমান তালে।আপনার পুজো শপিং কি হয়নি এখনও? পুজোর দিনগুলোতে নিজেকে কী ভাবে সাজিয়ে তুলবেন বুঝেই উঠতে পারছেন না? ষষ্ঠী থেকে দশমী, পুজো প্যান্ডেলগুলোকে মার্জার সরণি করে তুলতে হবে তো। সবার নজর কাড়তে কুল ফ্যাশন ফান্ডা রইল আপনাদেরই জন্য।

পোশাকের গতানুগতিক ধারার ঠাসবুনোট ভেঙে একটু অন্য কিছু ট্রাই করুন না। স্বাচ্ছন্দ্য থাক সম্পূর্ণ একশো শতাংশ। তবে বাজারচলতি পুজোর সাজ থেকে একটু সরে আসুন। নিজেকে মেলে ধরুন অন্য ভাবে।মন্দ কী? পুজো মানেই রংচঙে পোশাক সেজে প্যান্ডেল হপিং— এই ধারণাটা বদলে ফেলার সময় এসেছে। মানছি, পুজো মানে আনন্দ, তার মানে এই নয় যে পুজোর সময় পোশাকেও সেই আনন্দের ছোঁয়ার ঝিলিক দেখাতে গিয়ে নিজের স্বাস্থ্য আর আরামের কথাটা এক্কেবারে ভুলে যাব! বরং আরাম আর স্বাস্থ্যের কথাটা মাথায় রেখেই পুজোতে আপনার ফ্যাশন স্টেটমেন্ট হয়ে উঠুক ‘কুল মন্ত্র’।

Designer Abhishek Naiya Shares Fashion Tips For Durga Puja

সুতিতে সাজুন

এ বারের পুজোতেও গরমটা কিন্তু থাকবেই। সেই সময় এ পাড়ার প্যান্ডেল থেকে ও পাড়ার প্যান্ডেলে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে গলদঘর্ম হতে হবে আপনাকেও। কিংবা রেস্তোরাঁতে আগে থেকেই টেবিল বুক করা রয়েছে। স্পেশ্যাল খানাপিনা করবেন সে সময়। সেখানেও কিন্তু বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় ভিড়টা থাকবে খানিক বেশি। এ সব কিছুর সঙ্গে মানিয়ে নিতে আরাম চাই একশো শতাংশ। তাই হ্যান্ডলুম পোশাক পরাটাই ভাল। হান্ড্রেড বাই হান্ড্রেড পারসেন্ট সুতির পোশাক বেছে নিন। এখন বাজারে সুতির নাম করে বহু মিক্সড মেটেরিয়ালের পোশাক বিক্রি হয়। মিক্সড কটনে তৈরি সেই সব পোশাক এড়িয়ে যাওয়াই ভাল। তাতে ত্বকের ক্ষতি হওয়া থেকে রেহাই পাওয়া যাবে।পুজোর সাজে জমকালো সাজতে গিয়ে নিজের ত্বকের বারোটা বাজানো এ বার বন্ধ করুন। একে গরম, তার উপর প্যান্ডেল হপিং করতে গিয়ে গলদঘর্ম হতে হবে আপনাকেও।সে সময় ত্বকের সংস্পর্শে আসা পোশাক থেকে র‌্যাশ বেরনোর সমস্যা বাড়তে পারে। বেশি ঝকঝকে মেটেরিয়ালে তৈরি পোশাক মানেই খাদ রয়েছে। তাই যতটা সম্ভব অনুজ্জ্বল পোশাক বেছে নেওয়াই ভাল। কারণ তাতে খাদির ব্যাপারটা বজায় থাকবে, এর সঙ্গে ত্বকের ক্ষতি হওয়া থেকে অনেকটাই রেহাই পাওয়া যাবে। কারণ, বেশি চকচকে মেটিরিয়ালের পোশাকে খানিকটা মিক্সড হয়। তা সম্পূর্ণ খাঁটি সুতির পোশাক হয় না।

তবে হ্যাঁ, খাঁটি সুতির পোশাক কিনতে গেলে দামটা একটু বেশি পড়বে বইকি! তাই দামের কথা চিন্তা না করে এ বারের পুজোতে আরামের কথাটাই চিন্তা করুন। সুতি ছাড়া জুট, লিনেন কিংবা মলমলে তৈরি পোশাক বেছে নিতে পারেন।

কালার প্যালেট

এ ক্ষেত্রেও সাজেশন সম্পূর্ণ এক। আর্থ কালারের দিকেই ঝুঁকে থাকাই ভাল। কেন না বেশি ঝকঝকে রংয়ের পোশাক বেছে ত্বকের সমস্যা ডেকে না আনাই ভাল। ভেষজ রঙে ডাই করা পোশাক বেছে নিন। এটাই কিন্তু এখনকার ট্রেন্ড। বেশি রংচঙে পোশাক আউট অফ ফ্যাশন। বরং বর্তমান প্রজন্ম এক ঢালা রঙিন পোশাকের দিকেই বেশি আকৃষ্ট হচ্ছেন। অতিরিক্ত রংয়ের কারিকুরি না থাকাই ভাল। বড় জোর পোশাকটি যে রঙের, তার থেকে এক-দু’টোন বেশি বা কম রংয়ের ছোঁয়া থাকতে পারে ওই পোশাকের বিশেষ বিশেষ অংশে।

Designer Abhishek Naiya Shares Fashion Tips For Durga Puja

কোন কোন রং ফ্যাশন ইন:

• ইন্ডিগো

• মঞ্জিষ্ঠা

• অলিভ গ্রিন

• হরিতকি

• র চায়ের যেমন রং হয়

• চন্দন

• অকার ইয়েলো

• রাস্ট

• ডাল মেরুন

• কালচে নীল

• ব্ল্যাকিস ব্লু

• গ্রে

কাটের কেতা

রং আর মেটিরিয়ালের কারিকুরি তো নৈব নৈব চ। তা হলে কাটের দিকে তো একটু বিশেষ নজর দেওয়া বিশেষ ভাবে জরুরি বইকি। পুজো উপলক্ষ্যে আপনার ওয়াড্রোবে কেমন কাটের পোশাক তুলবেন তা নিয়ে এ বার কথা বলা যাক।

ফ্যাশন তো পরিবর্তন হতেই থাকে। পোশাক নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে সর্বক্ষণ। এর কোনও স্থায়িত্ব নেই। আজ যদি পোশাকের অমুক কাটটা ফ্যাশন ইন, তো কাল অমুক কাটটা। এ বারের পুজোতেও গরম থাকবে তাই শরীর ঢাকা পোশাক পরাই ভাল। পুজোর কয়েকটা দিন একটু পুরনো যুগের ফ্যাশনে নিজেকে ফ্যাশনিস্তা করে তুলুন না। পুজোর সময় গোটা শহর যখন আলোয় ঝলমল করে উঠবে, তখন ভিড়ে ঠাসা মহানগরীর রাস্তায় আপনাকে যাতে সবার চাইতে আলাদা দেখায় সেই চেষ্টাটা তো চালিয়ে যেতে হবেই।

এ বারের ফ্যাশন ‘লার্জার দ্যান লাইফ’। মানেটা হল আমরা রোজ যেমনটা চলি ঠিক তেমনটা নয়। তার থেকে একটু বেশি জমকালো। তবে তা আরামের কথা মাথায় রেখেই।

Designer Abhishek Naiya Shares Fashion Tips For Durga Puja

মেয়েদের  সাজ

আগেই বলা হয়েছে এ বছর গতানুগতিক ছক থেকে সরে এসে সাজা ভাল। তাই এ বারের পুজোর সাজের ধরনটা আরও একটু বেশি পিছিয়ে গেলে মন্দ হয় না। ধরুন মোগল বা রাজপুতানা ঘরানার যে সব পোশাক হত। অনেকটা সেই ধরনের। তবে হ্যাঁ, এই ধরনের পোশাক ক্যারি করতে হলে কিন্তু আপনাকে হাইলি ফ্যাশন কনশাস হওয়া জরুরি।

• এই পুজোয় অনায়াসেই একটা লং আনারকলি বেছে নিতে পারেন। সঙ্গে একটা পালাজো। যাতে দু-তিনটে লেয়ার থাকবে। এবং লেয়ারগুলো একই রংয়ের কাপড়ের এক-দু’শেড এ দিক ও দিক হেরফেরে তৈরি করা হলে খুব ভাল হয়। এতে আনারকলির ভলিউমটা অনেকটা বেশি দেখাবে। এবং দুটো শেড মিশে গিয়ে নতুন একটি রং তৈরি করবে।

• আর নীচে পরবেন লং পালাজো। দেখবেন পালাজোর ঘেরটা যেন একটু বেশি হয়।

• এ ছাড়া সায়রা টাইপ প্যান্টও পরা যেতে পারে।

Designer Abhishek Naiya Shares Fashion Tips For Durga Puja

সাজ-পোশাকে ছেলেরা

• ছেলেরা হান্ড্রেড অ্যান্ড হান্ড্রেড পারসেন্ট কটনে তৈরি শার্ট পরতে পারেন। তবে তার কলারটা অফ রাখাই ভাল। এরই সঙ্গে শার্টের নীচটা সার্কুলার কাট হলে ভাল। হাতাতেও কাটটাও হোক সার্কুলার।

• একই সঙ্গে একটু লম্বা ঝুলের পাঞ্জাবি পরতে পারেন। সঙ্গে একটু কম ঘেরের পালাজো প্যান্ট।

সর্বশেষ সংবাদ

দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
হেডফোন বা হেডসেট এমন বাছুন যা কি না আপনার কান আর শরীরকে কষ্ট না দেয়।
ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
এই একবিংশ শতাব্দীতে ১৫৯০-এর একটুকরো আওধকে কলকাতায় হাজির করেছেন ভোজনবিলাসী শিলাদিত্য চৌধুরী।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
শারদীয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই আগমনীর বার্তা নিয়ে হাজির দীপান্বিতা।