আলোয় ফেরার দীপাবলি

রেশমী প্রামাণিক
১৭ অক্টোবর, ২০১৭, ১৫:১৫:৫৬ | শেষ আপডেট: ১৭ অক্টোবর, ২০১৭, ০৯:৫৫:৩৯
দুর্গাপুজোর এক মাস আগে থেকে শুরু করে লক্ষ্মীপুজো পর্যন্ত,আড্ডা প্ল্যানিং,বাড়িঘর সাজানো আরও কত কিছুর মধ্যে দিয়ে কী ভাবে সময় কেটে যায় বোঝা যায় না। সমস্যা শুরু হয় ঠিক এর পর থেকে। অফিসকাছারি সব খুলে যায়, কিন্তু কাজে মন একেবারেই বসে না। মনটাকে ধরে বেঁধে কাজে বসিয়ে শুরু হয় দীপাবলির জন্য দিন গোনা। আসলে নিজেকে সুন্দর করে সাজিয়ে তুলতে উৎসবের রঙে রঙিন হয়ে কাছের মানুষের সঙ্গে একটু নিভৃতে সময় কাটাতে কে না চায়। তাই তো দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
ছবি: অনির্বাণ সাহা

দীপাবলির চলটা উত্তর ভারতে হলেও এখন কালীপুজো আর দীপাবলি মিলেমিশে গিয়েছে। সব মিলিয়ে তিন দিনের উৎসব। সঙ্গে লক্ষ্মীপুজো আর ধনতেরাসের উৎসব তো রয়েছেই। মায়ের আরাধনায় ফুল আর প্রদীপের সঙ্গে এই কটা দিন সুন্দর করে সেজে উঠুন আপনিও। রইল তার কিছু ঝলক।

Diwali Preparation With Rangoli And Diyas- Ananda Utsav 2017

সিঁড়িতে বা ঘরের কোণায় প্রদীপ দেওয়ার সময় পরনে থাক শাড়ি। আর সেই শাড়ি যদি হয় একটু ভারী কাজের তার সঙ্গে কানে একটা জমকালো গয়না থাকলে প্রদীপের আলোয় ঘরের সঙ্গে আলোকিত হবে আপনার সৌন্দর্য। তবে খেয়াল রাখবেন শাড়ি যেন সিন্থেটিক না হয়। আলোর উৎসবে মেতে ওঠার সঙ্গে আগুন থেকে সাবধানতা অবলম্বনও সমান ভাবে জরুরি।

Diwali Preparation With Rangoli And Diyas- Ananda Utsav 2017

এই উৎসবের অন্যতম অঙ্গ হল রঙ্গোলি। বলা হয় রঙ্গোলি সৌভাগ্যের প্রতীক। এ নিয়ে নানা মতবাদও রয়েছে। শ্রী বৃদ্ধির কামনায় মহিলারা বংশপরম্পরায় বহন করে চলেছেন এই ঐতিহ্য। শুধুমাত্র বাড়িতে নয়, সরকারি-বেসরকারি নানা প্রতিষ্ঠানেও আয়োজন করা হয় এই রঙ্গোলির। কর্নাটক, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ, গুজরাত সমেত ভারতের প্রায় সব জায়গায় প্রাদেশিক অনুষ্ঠানে রঙ্গোলির প্রচলন রয়েছে। সেই ঐতিহ্য বজায় রেখে শাড়ি গয়নায় সুসজ্জিত হয়ে নানা রঙের আবির নিয়ে বসুন রঙ্গোলি আঁকতে। বাজার চলতি রঙ্গোলির স্টিকার পাওয়া গেলেও হাতে আঁকার মজাটাই আলাদা। প্রয়োজন হলে আগে থেকে বেশ কিছু নকশা দেখে রাখতে পারেন। আঁকা হয়ে গেলে ফুল আর প্রদীপে মনের মতো করে সাজিয়ে নিন আপনার রঙ্গোলি।

Diwali Preparation With Rangoli And Diyas- Ananda Utsav 2017

বাড়ি সাজিয়ে ফেলেছেন। সম্পন্ন হয়েছে পুজোর কাজ। এ বার আপনার মিষ্টিমুখ আর সেলিব্রেশনের পালা। প্রিয়জনও উপস্থিত। জমকালো লেহেঙ্গা আর গয়নায় বসে পড়ুন বাকি প্রদীপ সাজাতে। দমন হোক দুষ্টের। জাগ্রত হোক সুচেতনার। আলোয় ভরে উঠুক এই ধরিত্রী।

মডেল- অন্তশীলা, মেঘা।

মেকআপ আর্টিস্ট মৈনাক।

স্টাইলিং- অঙ্কিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পোশাক সৌজন্যে- রিতিকা গোয়েঙ্কা এক্সক্লুসিভলি ফাউন্ডেশন (ডিজাইনার ওয়ার্ডোব)

সিমায়া

শান্তনু গুহ ঠাকুরতা

গয়না- হর্ষিতা সুলতানিয়া।

ফুড পার্টনার- কে কে’জ ফিউশন।

ছবি- অনির্বাণ সাহা

সর্বশেষ সংবাদ

ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
সকলকে সাজিয়ে তুলতে দিওয়ালির সম্ভার নিয়ে হাজির ডিজাইনার শান্তনু গুহ ঠাকুরতা।
সকালে অন্যরা যখন ঘুমিয়ে পুজোর হুল্লোড়ের স্বপ্ন দেখছে আপনি তখন ঘেমে নেয়ে একাকার।
শুধু সল্ট লেক সিটি নয়, সাতশো মাইল দূর থেকেও অনেকে এই পুজো দেখতে এসেছিলেন।
আমরা যে ছবিই তুলি না কেন, একটু ডিটেলিং পছন্দ করে থাকি।