নবমীর নিশির মন খারাপ নয়, লুটেপুটে নিন শেষবেলার আনন্দ

প্রমা মিত্র
নবমীর সকাল হলেই যেন মনটা কেমন খারাপ হতে থাকে। বেলা গড়িয়ে যতই বিকেল হতে থাকে ততই গভীর হতে থাকে মন খারাপ। আর সন্ধের পর থেকে ঢাকের আওয়াজেও যেন বিষাদের সুর। তবে তা বলে শেষবেলার আনন্দটুকু যেন হারিয়ে ফেলবেন না। নিজেকে চিয়ার আপ করুন।
নবমীর রাতটা এলেই মনে হতে থাকে আজই পুজো শেষ। কাল ভাসান হলেই আবার সেই একঘেয়ে জীবনে ফেরা। এই ধরনের ভাবনা মনে এলেই দূরে সরিয়ে দিন। সময় কেটেও যাবে, আবার জীবনের রুটিনে ফিরতেও হবে। কিন্তু তার জন্য ভেবে পুজোর শেষবেলার সময়টুকু মাটি হতে দেবেন না। আনন্দ করায় মন দিন।
আর মাত্র এক দিন ছুটি। তারপরই অফিস। আবার অফিস যেতে হবে ভাবলেই মুড অফ হয়ে যায়। আর নবমীর রাতে না চাইতেও মনে আসে এই চিন্তা। অফিসের চিন্তা মাথায় এলেই অন্য দিকে মন ঘুরিয়ে দিন। পারলে এই সময়টা অফিসের কারও ফোন ধরবেন না, কারও সঙ্গে ফেসবুকেও যোগাযোগ করবেন না। সেই সহকর্মী আপনার যতই প্রিয় হোক না কেন।
 
কালো রঙের শাড়ি বা পোশাক নবমীর রাতে পরবেন না। এতে যতই সাজুন না কেন মন কিছুটা বিষাদগ্রস্ত হবেই। উজ্জ্বল রঙের শাড়ি বা পোশাক পরুন। উজ্জ্বল গোলাপি বা লাল সবচেয়ে ভাল লাগবে দেখতে। সুন্দর হালকা গোলাপি বা হালকা নীল রঙের শাড়ির সঙ্গেও মুক্তোর গয়না পরে সুন্দর করে সাজতে পারেন। যাই পরুন না কেন সুন্দর করে সাজুন। যাতে নিজেকে আয়নায় দেখে সুন্দর লাগে। দেখতে সুন্দর লাগলে মনও ভাল লাগবে।
এই দিনটা চেষ্টা করুন এমন ভাবে কাটাতে যাতে এই রাতটা আপনার সুখস্মৃতি হয়ে থাকে। সবচেয়ে কাছের মানুষদের সঙ্গে কাটান, নিজের সবচেয়ে পছন্দের রেস্তোরাঁয় খেতে যান, সবচেয়ে পছন্দের পোশাকটা পরুন। যাতে এর পরেও এই বছরের নবমী নিশির কথা ভাবলে আপনার মনটা খুশিতে ভরে ওঠে। এটা প্রতি বছরই করুন। যাতে নবমী নিশি মানেই বিষাদ এই চিন্তা মন থেকে মুছে যায়।
 
সারা বছর কাজের চাপে পরিবারকে সময় দিতে না পারার আক্ষেপ সকলের মনেই থাকে। পুজোর সময়ও বন্ধু-বান্ধব, এটা-সেটা মিলিয়ে হয়তো পরিবারকে অতটাও সময় দিতে পারেন না। নবমী নিশিটা তাই রাখুন এক্সক্লুসিভলি পরিবারের সঙ্গে কাটানোর জন্য। শেষবেলাটা পরিবারের সঙ্গে কাটালে দেখবেন পুজো চলে গেলেও মন খারাপ হবে না।
ছবি: সংগৃহীত।
 

সর্বশেষ সংবাদ

ভিড়ের মধ্যে ঘুরে ঘুরে ঠাকুর দেখতে ভাল লাগে না। তার থেকে অনেক ভাল লাগে আড্ডা।
আমাদের ছোটবেলাটা ছিল সব পেয়েছিল দেশ। তখন যা চাইতাম তাই পেতাম।
ভাইকে এ বছর ভাইফোঁটাতে কী দেবেন ভেবেছেন? চলুন দেখি কিছু উপহারের নমুনা।
থাকছে অসংখ্য সিসি ক্যামেরার নজরদারি।
আজ কালীপুজো। দীপাবলির আলোয় সেজেছে চারিদিক।
শুধু কালীঘাট কিংবা দক্ষিণেশ্বর নয়। এ শহরে ছড়িয়ে রয়েছে ছোট বড় অসংখ্য কালীমন্দির।
বাজি পোড়ানোর সময় কিছু সাবধানতা নিতে বললেন চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা নন্দিনী রায় ও চেষ্ট ফিজিশিয়ান ডা সুস্মিতা রায়চৌধুরি।
মোমপ্রদীপ ও ফ্যান্সি প্রদীপের চাহিদা