কোজাগরীর অন্দরসজ্জা

রেশমী প্রামাণিক
০৪ অক্টোবর, ২০১৭, ১৪:২৩:৩২ | শেষ আপডেট: ০৪ অক্টোবর, ২০১৭, ০৯:০৬:২৬
কথায় বলে লক্ষ্মী- শ্রী। লক্ষ্মী মানেই সুন্দর, সিগ্ধ, মুগ্ধ সব একসঙ্গে। এই কয়েকটা দিন প্যান্ডেল হপিং করে বড়ই ক্লান্ত প্রত্যেকে। এর মধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে রুটিন মাফিক অফিস কাছারি। এ দিকে লক্ষ্মী পুজো এসে গেল। কমবেশি প্রায় সব বাড়িতেই লক্ষ্মীপুজো হয়ে থাকে। আর মা লক্ষ্মীর পুজোতে বেশ গুছিয়ে আয়োজন করতে হয়। সুন্দর করে ঘর গোছানো থেকে শুরু করে আলপনা, ভোগ ইত্যাদি।
মা লক্ষ্মীর পুজোতে বেশ গুছিয়ে আয়োজন করতে হয়।

পুজোর আগে ঝুল পরিষ্কার থেকে কুশানের কভার পাল্টানো প্রায় সবই করে রেখেছিলেন। কিন্তু পুজোর কটা দিনে বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে আড্ডা আর সেজেগুজে ঠাকুর দেখতে বেরিয়ে প্রায় সব লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে। ফুলদানিটা হয়তো ফুলের জায়গাতে নেই, খাওয়া দাওয়ার পর এ দিক ও দিক প্যাকেট, ঠোঙা পড়ে রয়েছে। আর এই কয়েক দিন আলসেমির চোটে জমে উঠেছে ডাস্টবিনও।কাজেই আগে কোমর বেঁধে নেমে পড়ুন সাফাই অভিযানে। চারপাশের নোংরা আবর্জনা পরিষ্কার করে জীবাণুনাশক ছড়িয়ে দিতে পারেন। ফুলদানির জল পাল্টে ফেলুন। কেন না জমা জলেই যে মশাবাহিনী নেচে খেলে বেড়ায় তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

Home Decor Tips For Laxmi Puja- Ananda Utsav 2017

এ বার আসা যাক অন্দরসজ্জায়। লক্ষ্মীপুজো বলে যখন কথা তখন তো কিছুতেই প্যাঁচাকে বাদ দেওয়া যায় না। আর পেঁচা এখন বেশ ফ্যাশনে ইন্‌। তাই প্যাঁচার মোটিফ ওয়ালা কুশানকভার গুলো পরিয়ে দিন মলিন কুশান গুলোতে। এ ছাড়াও মেলাতে হামেশাই বিক্রি হয় প্যাঁচার মুখওয়ালা ওয়াল হ্যাঙ্গিং বা কাঠের তৈরি প্যাঁচা আর প্যাঁচানীর পরিবার। কমবেশি প্রায় সকলের বাড়িতেই থাকে। তাই শোকেস থেকে প্যাঁচাকে বের করে এনে ধুয়েমুছে সাফ করে সাজিয়ে রাখুন। পদ্ম ছাড়া কোজাগরীর পুজো অসম্পূর্ণ। তাই একটু বেশি করে পদ্ম কিনে আনুন। একটা ফ্লোটিং বোলে জল দিয়ে সুন্দর করে পদ্ম ভাসিয়ে দিন। লাল আর সাদা পদ্ম মিশিয়ে রাখুন। বেশ লাগবে। আর বাড়িতে যদি শিউলির গাছ থাকে তাহলে মুঠোভরে শিউলি ফুল এনে প্লেটে সাজিয়ে রাখলেও বেশ লাগে।  

Home Decor Tips For Laxmi Puja- Ananda Utsav 2017

বিনা আলপনা কোনও পুজো তো প্রায় হয় না। তাও যদি আবার হয় লক্ষ্মীপুজো। চাল বেটে আলপনা দিতে এখন আর অনেকেই পারেন না। ফ্যাব্রিক বা খড়িমাটি দিয়ে সুন্দর করে আলপনা আঁকুন পুজোর জায়গাতে, প্রবেশদ্বারে। নানা রকম ফুল দিয়েও আলপনা বানাতে পারেন ড্রইং রুমের এক কোনে। এখন অবশ্য বাজারচলতি নানা আলপনার স্টিকার পাওয়া যাচ্ছে। ফুটপাথ জুড়ে ঢেলে বিক্রি হচ্ছে লক্ষ্মীপুজোয় ঘর সাজাবার নানা উপকরণ। কিনে এনে নিজের মতো করে সাজিয়ে নিন। বা পুজোয় সদ্য তোলা নতুন ছবিগুলো প্রিন্ট করে চার্ট পেপারে সাজিয়ে নিয়ে কোলাজ বানিয়ে বেডরুমে রাখতে পারেন। এছাড়াও ধানের ছড়া বা গাছকৌটো এ দিক ও দিক বসিয়ে সুন্দর করে সাজিয়ে তুলুন আপনার সাধের নীড়কে।

Home Decor Tips For Laxmi Puja- Ananda Utsav 2017

শুধু বাড়ি সাজবে আর আপনি বাদ এতো একেবারেই চলবে না। আপনিও সেজে উঠুন সুন্দর করে শাড়ি, অলঙ্কারে। ধানের ছড়া বা মা লক্ষ্মীর পদচিহ্ন ছোট্ট করে এঁকে ফেলুন কপালে। চেনা লক্ষ্মীর ভিড়ে আপনাকে যে অন্য রকম একটু লাগবেই এ বিষয়ে কোনও দ্বিমত নেই। হাতে সময় বড়ই অল্প। শুরু করে দিন আপনার কোজাগরী স্পেশ্যাল অন্দরসজ্জা। 

 

সর্বশেষ সংবাদ

দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
হেডফোন বা হেডসেট এমন বাছুন যা কি না আপনার কান আর শরীরকে কষ্ট না দেয়।
ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
এই একবিংশ শতাব্দীতে ১৫৯০-এর একটুকরো আওধকে কলকাতায় হাজির করেছেন ভোজনবিলাসী শিলাদিত্য চৌধুরী।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
শারদীয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই আগমনীর বার্তা নিয়ে হাজির দীপান্বিতা।