এক থেকে আশি, হাসির বয়স নানা রকম

সুমা বন্দ্যোপাধ্যায়
০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১৬:২৬:২৬ | শেষ আপডেট: ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১১:১৪:০৪
হাসলে যেন মুক্তো ঝরে। কী ভাবে? জেনে নিন ডেন্টাল সার্জন কুশলনারায়ণ চক্রবর্তীর কাছ থেকে।
ছবি: সংগৃহীত।

ফ্যাশনেবল জামা জুতো তো চাই-ই চাই, সঙ্গে নতুন লুক। আর তার জন্য চাই মাস্ট প্রাণখোলা  হাসি। এ দিকে নিকোটিনের কল্যাণে দাঁত দু’পাটি কালচে ছোপে ভরা, কারও আবার দাঁত অফ হোয়াইট। আপনারাই বলুন হলদে বা কালচে ছোপ ধরা দেঁতো হাসি কি দৃষ্টি নন্দন!দাঁত হোক এমন, হাসলে যেন মুক্তো ঝরে। কী ভাবে? জেনে নিন ডেন্টাল সার্জন কুশলনারায়ণ চক্রবর্তীর কাছ থেকে।

আইসক্রিম হোক অথবা গরমাগরম স্যুপ— মুখে দিলেই দাঁত শিরশির, এ দিকে চাইছেন ঝকঝকে দাঁত! আপাত ভাবে সম্ভব হলেও পরে ভুগতে হবে নিজেকেই। আসলে চেহারাই বলুন অথবা দাঁত, এ সব সুন্দর করার পাশাপাশি ভেতর থেকে সুস্থ রাখা জরুরি। তা না করলে আখেরে ভোগান্তি অবসম্ভাবী।

দাঁত ভাল রাখার একটিই পাসওয়ার্ড। তা হল দিনে দু’বার সঠিক পদ্ধতিতে ব্রাশ করার পাশাপাশি প্রতি বার খাওয়ার পর ভাল করে কুলকুচি করে মুখ পরিষ্কার রাখা, দাঁতের ফাঁকে যেন খাবারের টুকরো আটকে না থাকে, সে দিকে নজর রাখা। এ ছাড়া সিগারেট, বিড়ি, গুটখা, খৈনি-সহ যে কোনও বদ অভ্যাস দাঁত-সহ ওরাল হাইজিন নষ্ট করে দেয়।

Let Smile Be Your Unique Style Statement This Durga Puja-Ananda Utsav 2017

কেন ছোপ পড়ে দাঁতে

খৈনি বা সিগারেটের নেশা নেই। তা-ও দাঁতে ছোপ পড়ছে? বেশ কিছু কারণ লুকিয়ে আছে এর পিছনে। একে একে জেনে নেওয়া যাক।

·         দাঁতের সাদা ভাব চলে যাওয়ার এক অন্যতম কারণ বয়স। বয়স বাড়লে প্রকৃতির স্বাভাবিক নিয়মে যেমন ত্বকে ছাপ পড়ে, চুলে পাক ধরে, তেমনই দাঁতেও তার ছাপ পড়ে। এক জন টিন এজারের দাঁত যতটা উজ্জ্বল, ষাটোত্তীর্ণ দাঁত ততটাই দাগ ছোপে ভরা। যদি না সঠিক ভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়।

·         তামাক-সহ যে কোনও নেশাই দাঁতে ছোপ পড়ার একটা বড় কারণ।

·         খাদ্যাভ্যাস অনেক সময় দাঁতের রং বদলে দেয়। যারা নিয়মিত যথেষ্ট কফি, চা বা রেড ওয়াইন পান করেন তাঁদের দাঁতের রং বদলে যায়।

·         ডার্ক চকোলেট, বিট, গাজর বেশি খেলে দাঁতে ছোপ পড়তে পারে।

·         রোজকার ডায়েটে ভিনিগার-সহ প্রচুর সাইট্রাস অর্থাৎ টক জাতীয় খাবার থাকলে দাঁতের এনামেল ক্ষয়ে যায়। রং যায় পাল্টে।

·         বেশ কিছু ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসেবে দাঁতে কালো ছোপ পড়তে পারে। বিশেষ করে ছোটবেলায় টেট্রাসাইক্লিন জাতীয় ওষুধ খেলে প্রথম থেকেই দাঁতের রং ঠিক হয় না।

·         চোট আঘাত লেগে দাঁতের রং বদলে যায়। ব্যথা থাকে না বলে কেউই প্রথমে গা করেন না। কিন্তু পরবর্তী কালে দাঁতের রং পাল্টে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোগান্তিও কম হয় না।

·         অনেকের একটা বদ অভ্যেস আছে, দাঁত কিড়মিড় করা। দাঁতে দাঁতে ঘষা লেগে এনামেল ক্ষয়ে যাবার সঙ্গে সঙ্গে রংও পাল্টে যায়।

Let Smile Be Your Unique Style Statement This Durga Puja-Ananda Utsav 2017

 

কী করবেন, কী করবেন না

 
প্রথমেই বলি দাঁত থাকতে দাঁতের মর্যাদা দেওয়ার কথাটা ভুলবেন না। খাওয়ার পর সঠিক পদ্ধতি মেনে ব্রাশ মাস্ট। আর টুথ পিক বা ফ্লস ব্যবহার করতে হলে আগে এক বার অন্তত ডেন্টাল সার্জেনের পরামর্শ নেওয়া উচিত। লক্ষ করে দেখবেন, অল্প বয়সীরা কিন্তু এগুলো ব্যবহার করেন না। যখনই টুথপিক ব্যবহারের প্রয়োজন হবে, বুঝবেন দু’টি দাঁতের মধ্যবর্তী গ্যাপ বেড়ে গিয়েছে। মূল কারণটা বুঝতে পারবেন এক জন চিকিৎসক। তাই কোনও সমস্যা থাকুক, বা না থাকুক, বছরে অন্তত এক বার ডেন্টাল সার্জনের কাছে যান। আর একটা ব্যাপারে আমাদের খুব অনীহা আছে, তা হল স্কেলিং করা। অনেকেই ভাবেন স্কেলিং করলে বোধহয় দাঁত পাতলা হয়ে যায়। কিন্তু ঝকঝকে ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল দাঁত পেতে গেলে বছরে এক বার স্কেলিং মাস্ট। টুথপেস্ট ছাড়া গুঁড়ো মাজন বা নুন তেল দিয়ে দাঁত মাজলে দাঁতের এনামেল ক্ষয়ে গিয়ে সমস্যা হয়। যে কোনও নেশা থেকে দূরে থাকুন তা হলে আর সমস্যায় পড়বেন না।

Let Smile Be Your Unique Style Statement This Durga Puja-Ananda Utsav 2017

ঝকঝকে দাঁতের জন্যে কী করবেন

পুজোর সময় মুক্তোর মতো সাদা দাঁত অথবা হিরে ঝলকানো হাসি পেতে গেলে মডার্ন ট্রিটমেন্টের সাহায্য নিতে হবে এখন থেকেই। একটা বা দুটো সিটিংয়েই পাওয়া যাবে স্বপ্নের হাসি। তার আগে জেনে রাখুন দাঁতে ‘পোকা’ অর্থাৎ ক্যাভিটি থাকলেও দাঁত কালো হয়ে যেতে পারে। আগে তার চিকিৎসা করাতে হবে। এবড়োখেবড়ো বা ভাঙা দাঁতও নিমেষে সমান করে দেওয়া যায়। এ ছাড়া বিশেষ পদ্ধতিতে টুথ হোয়াইটেনিং করা হয়। অনেকে ওভার দ্য কাউন্টার হোয়াইটেনিং এজেন্টের সাহায্যে দাঁত সাদা করেন। এগুলো মূলত ব্লিচিং এজেন্ট। নিয়মিত ব্যবহারে দাঁতের এনামেল ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তাই চিকিত্সকের সাহায্য নেওয়াই বাঞ্ছনীয়। ইদানীং অত্যধুনিক লেসার দিয়ে দাঁত ঝকঝকে করে দেওয়া হচ্ছে। খরচ তুলনামূলক ভাবে কিছুটা বেশি। আর অনেকে দাঁতে হিরের টুকরো বসিয়ে হাসিতে এক নতুন ঝলক আনছেন।

পুজো ভাল কাটুক, দাঁত ভাল রাখুন, ভাল থাকুন। 

 

সর্বশেষ সংবাদ

দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
হেডফোন বা হেডসেট এমন বাছুন যা কি না আপনার কান আর শরীরকে কষ্ট না দেয়।
ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
এই একবিংশ শতাব্দীতে ১৫৯০-এর একটুকরো আওধকে কলকাতায় হাজির করেছেন ভোজনবিলাসী শিলাদিত্য চৌধুরী।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
শারদীয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই আগমনীর বার্তা নিয়ে হাজির দীপান্বিতা।