বাজি পোড়ানোর আনন্দের সঙ্গে খেয়াল রাখুন এই ১০ বিষয়

প্রমা মিত্র
fire crackers

আর মাত্র তিন দিন। আলোর উত্সবে পরিবারের সকলকে নিয়ে মেতে ওঠার দিন এসে গেল। নতুন জামা পরে সেজেগুজে, ঘর সাজিয়ে, বাজি না পোড়ালে আর দীপাবলির আনন্দ কি! তবে আনন্দে আত্মহারা হয়ে নিজের, পরিবারের, আশেপাশের মানুষদের সুরক্ষা, সুবিধা-অসুবিধার কথা ভুলে গেলেই কিন্তু ঘটে যেতে পারে বড় বিপদ। আবার একটু সাবধান থাকলেই আপনার উত্সব হয়ে উঠতে পারে আনন্দমুখর।

পোশাক: কালীপুজোয় বাজি পোড়াতে সকলেই ভালবাসেন। আবার কালীপুজো, দীপাবলি মানেই সাজগোজ। যেমন খুশি সাজুন পুজোর সময়। কিন্তু বাড়ি পোড়ানোর সময় অবশ্যই সিন্থেটিক নয়, একেবারে সুতির পোশাক পরে তবেই বাড়ি পোড়াতে আসুন।

বাজি: খেয়াল রাখতে হবে বাজি কেনার সময়ও। বেআইনি দোকান থেকে কিনবেন না। আইনত স্বীকৃত বাজি প্রস্তুতকারকের কাছ থেকে ভাল মানের বাজি কিনুন। বাজি ভাল মানের হলে দুর্ঘটনার ঝুঁকি কমে।

Safety Tips For Burning Crackers This Diwali-Ananda Utsav

বাচ্চাদের খেয়াল: বাড়ির বাইরে বাজি পোড়াতে নিয়ে যাওয়ার আগে বাচ্চাদের বাড়ি সম্পর্কে ভাল করে শিখিয়ে পড়িয়ে নিন। কোন বাজি কী ভাবে জ্বালাতে হবে, কী ভাবে সাবধান থাকতে হবে, সে বিষয়ে ভাল করে বুঝিয়ে দিন বাচ্চাদের। বাজি পোড়ানোর সময় তাদের পাশে থাকুন। কোনও ভাবেই ওদের একা ছাড়বেন না।

অগ্নি নির্বাপক: যেখানে বাজি পোড়াবেন তার আশেপাশে অগ্নি নির্বাপক রাখুন। যদি অগ্নি নির্বাপক না রাখতে পারনে তাহলে জল ভর্তি বালতি ও বালি রাখুন হাতের কাছে।

বন্ধ জায়গা: বাজি সব সময় বাড়ির বাইরে খোলা জায়গায় পোড়ান। বন্ধ জায়াগায় বাজি পোড়ালে বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

Safety Tips For Burning Crackers This Diwali-Ananda Utsav

ফার্স্ট এড কিট: বাজি পোড়ানোর আনন্দে সুরক্ষার কথা ভুলে গেলে চলবে না। হাতের কাছে সব সময় রাখুন ফার্স্ট এড কিট।

পোড়া বাজি: পুড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাজি জলের বালতিতে দিন বা উপরে বালি ছড়িয়ে দিন। অনেক সময় পোড়া বাজি থেকেও বড় বিপদ ঘনিয়ে আসে।

প্রদীপ ও মোমবাতি: দীপাবলি মানেই মোমবাতি ও প্রদীপ। বাড়ি অবশ্যই মোমবাতি, প্রদীপের আলোয় সাজিয়ে তুলুন। কিন্তু খেয়াল রাখুন পর্দা বা অন্য কোনও দাহ্য বস্তু, আগুন ধরে যেতে পারে এমন কিছুর পাশে মোমবাতি বা প্রদীপ জ্বালাবেন না। 

Safety Tips For Burning Crackers This Diwali-Ananda Utsav

পোষ্য: কালীপুজো, দীপাবলির দিন চারপাশে শুধুই বাজির আওয়াজ আর আওয়াজ। এতে পোষ্যরা চমকে ওঠে, ওদের কষ্ট হয়। তাই কালীপুজোর কিছু দিন আগে থেকেই বাড়িতে এই রকম আওয়াজ চালিয়ে রেখে ওদের ধাতস্ত হতে দিন। বাজি থেকে ওদের দূরে রাখুন। বাড়িতে মোমবাতি, প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখলে পোষ্যদের একা রাখবেন না ঘরে।

সংবেদনশীলতা: দীপাবলির উত্সবে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় সাবধানতা ও সংবেদনশীলতা। শুধু নিজের আনন্দের দিকে নজর দিলেই হবে না, খেয়াল রাখুন পাড়া-প্রতিবেশী, আশেপাশের মানুষদেরও। শব্দ দূষণ যে কোনও মানুষের পক্ষেই ক্ষক্তিকারক। বিশেষ করে বয়স্কদের জন্য। তাই যতটা সম্ভব শব্দবাজি থেকে দূরে থাকুন।

সর্বশেষ সংবাদ

ভিড়ের মধ্যে ঘুরে ঘুরে ঠাকুর দেখতে ভাল লাগে না। তার থেকে অনেক ভাল লাগে আড্ডা।
আমাদের ছোটবেলাটা ছিল সব পেয়েছিল দেশ। তখন যা চাইতাম তাই পেতাম।
ভাইকে এ বছর ভাইফোঁটাতে কী দেবেন ভেবেছেন? চলুন দেখি কিছু উপহারের নমুনা।
থাকছে অসংখ্য সিসি ক্যামেরার নজরদারি।
আজ কালীপুজো। দীপাবলির আলোয় সেজেছে চারিদিক।
শুধু কালীঘাট কিংবা দক্ষিণেশ্বর নয়। এ শহরে ছড়িয়ে রয়েছে ছোট বড় অসংখ্য কালীমন্দির।
বাজি পোড়ানোর সময় কিছু সাবধানতা নিতে বললেন চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা নন্দিনী রায় ও চেষ্ট ফিজিশিয়ান ডা সুস্মিতা রায়চৌধুরি।
মোমপ্রদীপ ও ফ্যান্সি প্রদীপের চাহিদা