‘কিউএলইডি’ না ‘ও লেড’ কোন টিভি কিনবেন, দেখে নিন

স্বপন দাস
২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১২:৪৯:৫৩ | শেষ আপডেট: ১১ অক্টোবর, ২০১৭, ০৬:০৫:০৯
কোয়ান্টাম ডট লাইট এমিটিং ডায়োডস সংক্ষেপে যাকে বলা হচ্ছে কিউএলইডি। এ বছর বাড়িতে একটা নতুন টেলিভিশন কেনার চিন্তা যাঁরা করছেন, তাঁরা দোকানে গিয়ে যখন এই শব্দটা দেখবেন, একটু কৌতুহল জাগাটাই স্বাভাবিক। সাম্প্রতিক টেলিভিশনের টেকনোলজিতে যে পরিবর্তন এসেছে, এটি তার একেবারে নতুন সংযোজন।
২০১৭-র জুলাইয়ে বাজারে এসেছে এই টেকনোলজির টিভি।

এই কিউএলইডি টেকনোলজি আসলে কী?

এই টেকনোলজিতে ছবির পিক্সেলে ভাঙা আলোকবিন্দু সরাসরি ডিসপ্লে-তে আসে। ফলে ছবি আরও পরিষ্কার, চকচকে, ঝকঝকে এবং জীবন্ত মনে হবে। সাধারণত এলইডি টেলিভিশনে ডিসপ্লে-তে ছবি আসে এলইডি ব্যাক লাইট হয়ে। ২০১৭-র জুলাইয়ে বাজারে এসেছে এই টেকনোলজির টিভি। তবে এর আগে ‘ও লেড’ টোকনোলজির টিভি বাজারে এসে গিয়েছিল।

এই দুই ধরনের টিভিতে ফারাক কোথায়?

‘ও লেড’ হচ্ছে অরগ্যানিক লাইট এমিটিং ডায়োড। এটিও ডিসপ্লের ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা নেয়। ডিসপ্লের সময় আমরা কালো রংকে একটু ধূসর দেখি। এখানে কালো রঙের তীক্ষ্ণতা থাকার কারণে ছবি অনেক উজ্জ্বল হয়। আর এই টেকনোলজিতে টিভিকে ঘরের যে কোণ থেকেই দেখা হোক না কেন রঙ ও ছবি একটুও বদলাবে না। এই টেকনোলজির টিভি আমাদের দেশের বাজারে ২০১৭ সালে এলেও বিশ্বের অন্য বাজারে ২০০৯ সালেই এসেছিল ফিলিপস এর লাইটিং প্যানেল মারফৎ। তার অনেক পরে অবশ্য টিভিতে এই টেকনোলজির ব্যবহার শুরু হয়।

যাক সে কথা, এ বছর পুজোর সময় অন্তত টিভি নিয়ে আলোচনা করতে গেলে এই দুই টেকনোলজি নিয়েই যে বেশি হবে সেটা বলা যেতেই পারে। স্যামসাং -এর কিউএলইডি টিভির (৫৫ ইঞ্চি ) দাম মোটামুটি ২ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা থেকে শুরু। আর সোনির ও লেড টিভির (৬৫ ইঞ্চি) দাম শুরু ৪ লক্ষ ৬০ হাজার থেকে। এলজি-র দাম অবশ্য একটু কম।৫৫ ইঞ্চির দাম শুরু ২ লক্ষ ২০ হাজার থেকে।

Television Set Trends In Durga Puja- Ananda Utsav 2017

এ বার টিভি কেনার নিরিখে এগিয়ে স্মার্ট ও অ্যান্ড্রয়েড টেকনোলজির সেটগুলি। ক্রেতাদের কাছে রিমোট ব্যবহারের থেকে একটু মুখ বদল করার ইচ্ছার চেষ্টা।সেই চেষ্টাতেই সাফল্যের হাতছানি নির্মাতাদের অ্যান্ড্রয়েড টেকনোলজির সেট। মোবাইলের টাচ স্ক্রিন ব্যবহার করতে করতে ইচ্ছে তো জাগতেই পারে টিভির স্ক্রিনে হাত দিয়ে ছুঁয়ে যদি সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারা যেত তা হলে খুব ভাল হত! সেটাই এ বার ক্রেতারা পেলেন। আরও একটা চাহিদা ছিল হাতের স্মার্ট ফোনটার সঙ্গে কোনও রকম ভাবে সংযোগ করে যদি ইন্টারনেট করা যেত, তা হলে অনেক সুবিধা হত। অনেক বড় বড় করে সব কিছু দেখতে পাওয়া যেত। সেই সুবিধাও টিভিতে নিয়ে এসেছেন নির্মাতারা। আর মোবাইল এর মাধ্যমে নিজের টিভি দেখার অভিজ্ঞতা আগেই এসেছে অনেকের কাছে।সব চেয়ে বড় কথা এই ধরনের টিভির জনপ্রিয়তা বাড়াচ্ছে নেটের মাধ্যমে ইউ টিউব, নিউজ চ্যানেল আর সিনেমার চ্যানেলের দেখার সুবিধা। এ সব টেকনোলজির টিভির ক্ষেত্রে শুধু নেট সংযোগ থাকলেই হবে, কেবল সংযোগ না থাকলেও চলবে। এখন তো আবার টিভিতে নেট সংযোগ করার জন্য বেশ কিছু সংস্থা ডঙ্গল-ও নিয়ে এসেছে।পশ্চিমবঙ্গের দু’টি জনপ্রিয় বিপণির বিক্রয় আধিকারিক সন্দীপ ঘোষ ও মানস প্রামাণিক জানাচ্ছেন, দাম নিয়ে সেই অর্থে অনেকেই মাথা ঘামাচ্ছেন না। কেননা ইএমআই-তে নেওয়ার সুবিধাও পাওয়া যাচ্ছে।

 

দামের দিকগুলো একটু দেখে নেওয়া যাক এ বার

সোনির ৫৫ ইঞ্চির অ্যান্ড্রয়েডের দাম ৮১ হাজার থেকে শুরু। অবশ্য ৪৩ ইঞ্চি পাওয়া যাবে ৫৩ হাজারের কাছাকাছিতে। মাইক্রোম্যাক্স-এর ৩২ ইঞ্চি এই টিভির দাম ২০ হাজারের একটু বেশি।ভিডিওকন-এর ৩২ ইঞ্চির দাম ২৩ হাজারের মতো। স্যামসাং-এর ৪৩ ইঞ্চির দাম ৫৭ হাজার। তবে এখানে একটা বিষয় বলে রাখা ভাল, এ বার এই পুজোর অফারে যাঁদের পকেটের জোর একটু কম তাঁরা ৪-কে টিভির দিকে ঝুঁকুন অথবা ১৩ হাজার থেকে শুরু হওয়া এলইডি সেট ভাল পেয়ে যাবেন এই পুজোতে। এমনটাই জানাচ্ছেন বিক্রেতারা।

সর্বশেষ সংবাদ

দীপাবলি মানে অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরা। ফুল, প্রদীপ, রঙ্গোলির রঙে মনকে রাঙিয়ে তোলা।
হেডফোন বা হেডসেট এমন বাছুন যা কি না আপনার কান আর শরীরকে কষ্ট না দেয়।
ছবি তোলার প্রথম ক্যামেরা কোডাক যে দিন বাজারে এল বিক্রির জন্য, সেই ১৮৮৮ সালে। পাল্টে গেল ছবি তোলার সংজ্ঞাই।
আগে এই প্রথা মূলত অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন লক্ষ্মীলাভের আশায় বাঙালিরাও সমান ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
ধন কথার অর্থ সম্পদ, তেরাসের অর্থ ত্রয়োদশী তিথি।
এই একবিংশ শতাব্দীতে ১৫৯০-এর একটুকরো আওধকে কলকাতায় হাজির করেছেন ভোজনবিলাসী শিলাদিত্য চৌধুরী।
আমেরিকার সেন্ট লুইসের প্রায় ৪০০ বাঙালিকে নিয়ে আমরা গত সপ্তাহান্তে মেতে উঠেছিলাম দূর্গা পুজো নিয়ে।
শারদীয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই আগমনীর বার্তা নিয়ে হাজির দীপান্বিতা।