কৈশোরে পা দেওয়া ছেলে-মেয়ের ঘর সাজাবেন কী করে

নিজস্ব প্রতিবেদন

২৬ অক্টোবর, ২০২০, ১৭:৪৮
শেষ আপডেট: ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ১৭:৫৯

এই বয়সের ছেলেমেয়েদের জন্য অন্দরমহল সাজিয়ে তোলার সময়ে মনে রাখা জরুরি- তা যেন গড়ে দেয় ওদের একেবারে নিজস্ব একটা জগৎ।


বয়ঃসন্ধি মানেই মন উচাটন। নানা রকম প্রশ্ন। অভিমান-উচ্ছ্বাস সবটুকু মিলে একটা অন্য রকম মন তৈরি হওয়ার শুরু। তাই টিনএজারদের ঘরের রং হওয়া দরকার এনার্জিতে ভরপুর। আলোর ক্ষেত্রেও তাই। ঘরে যেন প্রচুর পরিমাণে আলো ও হাওয়াবাতাসের ব্যবস্থা থাকে। বয়ঃসন্ধির ছেলে-মেয়েরা সাধারণত একটু অভিমানী হয়। এক দিকে পড়ার চাপ, সঙ্গে অন্য দিকে শিল্পকলা,  খেলাধূলা বা কোনও রকম সৃজনশীল কাজে জড়িয়ে থাকলে তার চাপ— সব মিলিয়ে সারা দিন কাজের পর ওদেরও চাই একটু প্রাইভেসি। এই বয়সের ছেলেমেয়েদের জন্য অন্দরমহল সাজিয়ে তোলার সময়ে মনে রাখা জরুরি- তা যেন গড়ে দেয় ওদের একেবারে নিজস্ব একটা জগৎ।

অন্দরসজ্জার অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি কিংবা অর্নামেন্টাল ইন্টিরিয়ার ডিজাইনিং এই বয়সের ছেলেমেয়েরা খুব একটা পছন্দ করে না। বরং ওরা চায় ছিমছাম, কিন্তু বেশ রুচিসম্মত অন্দরসাজ। আর তাই ঘরের আসবাবপত্রে খুব বেশি কারুকাজ, বা ঘরে খুব বেশি বা ভারী কাজ করা যাবে না। বরং ছিমছাম, সহজ, সরল এবং মনকাড়া ডিজাইনে অন্দরসাজই এই বয়সি ছেলেমেয়েদের পছন্দসই।

এই বয়সী ছেলেমেয়েদের ঘরের খাট অবশ্যই প্রমাণ মাপের করা দরকার

এই বয়সী ছেলেমেয়েদের ঘরের খাট অবশ্যই প্রমাণ মাপের করা দরকার। ছেলে বা মেয়ে ঘরে একা থাকলে সিঙ্গল খাট করে দেওয়ার কথা ভাবেন অনেকেই। সেটা কিন্তু ঠিক নয়। কারণ কাজের চাপে তারা বিছানায় শোয়ার সুযোগই কম পায় বটে, কিন্তু যখন ঘুম বা বিশ্রামের সময়ে আরামের জন্য অনেকটা জায়গা লাগে। অনেকে খাটে বসেই অনলাইন ক্লাস ইত্যাদি প্রয়োজনীয় সব কাজ সারতে চায়। ঘরে জায়গা না থাকলে অবশ্য সিঙ্গল খাট ছাড়া গতি নেই।

আরও পড়ুন: দক্ষিণের জানলা যেন একমুঠো খোলা হাওয়া

খাটের পাশে বেডসাইড টেবিল তো থাকবেই, সেই সঙ্গে নাগালের মধ্যে সুইচ বোর্ডও যেন অবশ্যই থাকে। এবং তাতে প্লাগ পয়েন্ট থাকাটা খুবই আবশ্যিক। অনেক সময়েই অষ্টাদশী ছেলেমেয়েরা বিছানায় বসে ল্যাপটপে কাজ করে বহুক্ষণ ধরে। তাই বিছানায় বসে বসে ল্যাপটপ চার্জ দিয়েও অনেকে দরকারি কাজ যাতে সারা যায়, সে ব্যবস্থা রাখতে হবে। বিছানার পাশে তাই প্লাগ পয়েন্টটা বেশ জরুরি জিনিস।

আরও পড়ুন: পুরনোকে আসবাবে নতুন স্বাদ অ্যান্টিক অন্দরসজ্জা 

অন্দরসজ্জা হোক ছিমছাম, সহজ, সরল এবং মনকাড়া ডিজাইনের

জিনিসপত্র রাখার জায়গা যথেষ্ট পরিমাণে থাকাটা দরকার বয়ঃসন্ধির ছেলেময়েদের ক্ষেত্রে। আলমারি বা ওয়ার্ডরোবের নীচের দিকে ড্রয়ার থাকলে অনেক কিছু রাখার সুবিধা পাওয়া যায়। অন্য দিকে সাজার জায়গা বা ড্রেসিং ইউনিট অষ্টাদশী কন্যের অন্দরসজ্জার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। ড্রেসিংয়ের জায়গাটা বেশ চওড়া হওয়াটা বাঞ্ছনীয়। খাটের পাশে যেখানে বেড সাইড টেবিল থাকে, সেখানে ড্রেসিংয়ের জায়গা বানিয়ে নেওয়া যায়। নীচের দিকটায় ড্রয়ার থাকবে। মোটামুটি আড়াই ফুট উচ্চতা থেকে শুরু হয়ে উচ্চতায় প্রায় সাড়ে ছ’ফুট পর্যন্তও উঁচু হতে পারে আয়না।