ঠোঁট হবে নরম, ত্বক থেকে চুল ঝকঝকে, এই ভেষজেই কামাল পুজোয়

নিজস্ব প্রতিবেদন

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১৭:০১
শেষ আপডেট: ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ২০:১৮

ত্বকের পরিচর্যা কিংবা ঘরোয়া টোটকায় স্বাস্থ্যরক্ষা...অ্যালো ভেরা অত্যন্ত উপকারী। এটি আসলে এক ধরনের সাকিউলেন্ট।


উৎসবের মরসুমে সঙ্গী করুন ঘৃতকুমারীকে। চিনতে পারছেন না? ভিটামিন, উৎসেচক, খনিজ, সুগার, অ্যামাইনো অ্যাসিড, স্যাপোনিন, ফ্যাটি অ্যাসিড, হরমোন...সব মিলে ঘৃতকুমারী বা ‌অ্যালো ভেরার অসংখ্য গুণ। এ বার পুজোয় সঙ্গে থাকুক এই বিশেষ ভেষজ উপাদান।

ত্বকের পরিচর্যা কিংবা ঘরোয়া টোটকায় স্বাস্থ্যরক্ষা...অ্যালো ভেরা অত্যন্ত উপকারী। এটি আসলে এক ধরনের সাকিউলেন্ট। এর প্রতিটি পাতা মোটা, নরম কাঁটাযুক্ত। ভিতরে রয়েছে সাদা রঙের নরম তুলতুলে শাঁস। এই গাছ জন্মায় যত্রতত্র। বিশেষ যত্নেরও প্রয়োজন নেই। 

ব্যবহারবিধি

রূপচর্চার জন্য অ্যালো ভেরা ব্যবহার করা যায় সরাসরি। সে ক্ষেত্রে এমন গাছ নিতে হবে, যার পাতা মোটা, সুস্থ এবং শাঁসালো। একটি পাতা কেটে লম্বালম্বি চিরে নিতে হবে। ভিতরে পাওয়া যাবে নরম, ঠান্ডা শাঁস। সেই শাঁস ছুরি বা চামচ দিয়ে চেঁছে নিয়ে ব্যবহার করতে পারেন স্বচ্ছন্দে। তবে পাতাটি ধুয়ে নিতে হবে আলতো করে। ছুরি বা চামচও যেন সাবান জলে ধোওয়া হয় তা খেয়াল রাখতে হবে।

  • শুষ্ক ত্বকের ক্ষেত্রে : পাতা কেটে শাঁস বার করে নিতে হবে। তাতে এক চিমটে হলুদ গুঁড়ো, এক চা চামচ মধু, এক চা চামচ দুধ এবং কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল মেশাতে হবে। এ বার ভাল করে মিশিয়ে মুখে, গলায়, ঘাড়ে লাগিয়ে নিতে হবে। আধ ঘণ্টা পরে পরিষ্কার জলে ধুয়ে নিতে হবে।

আরও পড়ুন: শরীর-মনের পলিশে নিউ নরম্যালের নতুন পুজো

  •  সংবেদনশীল ত্বকের ক্ষেত্রে: অ্যালো ভেরা জেল, শসার রস, দুধ, রোজ় অয়েল এক সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করতে হবে সংবেদনশীল ত্বকে। এটি আবার ব্রণ বা অ্যাকনে দূর করতেও সাহায্য করে।
  •  প্রাকৃতিক স্ক্রাব হিসেবে: আধ কাপ অ্যালো ভেরা জেলের সঙ্গে এক কাপ চিনি, দু’টেবিল চামচ পাতিলেবুর রস মেশালেই তৈরি স্ক্রাব। এ বার আলতো হাতে মুখে-গলায় ঘষতে হবে এই স্ক্রাব। এতে মৃত কোষ যেমন দূর হবে, তেমনই অ্যালো ভেরা সাহায্য করে ত্বক পরিষ্কার করতে। আবার পাতিলেবুর রস যে কোনও দাগছোপ ও ট্যান কমাতে সাহায্য করে। এই স্ক্রাব চাইলে ব্যবহার করা যায় রোজই।

ত্বকের পরিচর্যায় অ্যালো ভেরা অত্যন্ত উপকারী।  

  • প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন হিসেবে: সানবার্ন, সানট্যান রুখতেও অ্যালো ভেরার জুড়ি নেই। রোদে বেরনোর আগে কৃত্রিম সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে না চাইলে অ্যালো ভেরার জেল অল্প লাগিয়ে নিতে পারেন মুখে। ফিরে এসে ফের মুখ পরিষ্কার করে, অ্যালো জেল লাগিয়ে নিলে উপকার মিলবে বেশি।
  • ঠোঁটের যত্নে ব্যবহার: ঠোঁট নরম রাখতেও অ্যালো ভেরা অদ্বিতীয়। সামান্য অ্যালো জেল সরাসরি ঠোঁটে লাগিয়ে নিতে পারেন। কিনতে পারেন অ্যালো ভেরাযুক্ত লিপ বাম।

আরও পড়ুন: উৎসবের মরসুমে তরতাজা থাকতে রাখুন এই সব এসেনশিয়াল অয়েল

চুল হবে ঝলমলে

অ্যালো ভেরায় থাকে প্রোটিয়োলাইটিক উৎসেচক, যা স্ক্যাল্পের মৃতকোষ সারাতে সাহায্য করে। আবার চুলের কন্ডিশনার হিসেবেও দারুণ কাজ করে। চুলের বৃদ্ধিতে, স্ক্যাল্পের চুলকানি কমাতে সাহায্য করে এটি। খুশকি কমাতেও সাহায্য করে অ্যালো ভেরা। এর জন্য সম পরিমাণে অ্যালো ভেরা জেল ও একস্ট্রা ভার্জিন কোকোনাট অয়েল মিশিয়ে সারা রাত চুল ও স্ক্যাল্পে লাগিয়ে রাখতে হবে। পরদিন সকালে চুল শ্যাম্পু করে নিলেই হবে। সপ্তাহে দু’দিন করতে হবে এটি।

ত্বকের যত্ন

  • অ্যালো ভেরা ত্বক পরিষ্কার করে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে। এই গাছ এমনিতেই রুক্ষ, শুষ্ক আবহাওয়াতেও তরতাজা থাকে। পাতায় সঞ্চিত থাকে জল, গাছের খাদ্য। পাতায় থাকা কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট ত্বককে আর্দ্র রাখে।

আরও পড়ুন: লেবু জল, গ্রিন টি আর অঞ্জলি, মাতিয়ে দিন পুজো

  • ত্বক এক্সফোলিয়েট করে মেরামতেও সাহায্য করে অ্যালো। এর শাঁস ঠান্ডা হয়। ফলে ত্বকে আরাম হয় এই জেল লাগালে। অ্যালো ভেরায় আছে ভিটামিন সি, ই এবং বিটা ক্যারোটিন। ফলে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখায় বলিরেখা পড়তে বাধা দেয়। তবে ত্বকের যত্ন নিতে অ্যালো ভেরা ব্যবহারের বেশ কিছু উপায় রয়েছে। সব ধরনের ত্বকে একই ভাবে অ্যালো ভেরা ব্যবহার করা যায় না। সে ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।